যখন আপনি নতুন কম্পিউটার কিনতে যাবেন কম্পিউটারের অন্যা যন্ত্রাংশ আপনি যতটা গুরুত্ব সহকারে দেখবেন, কিন্ত মাউস কেনার আগে আপনি ততটা গুরুত্ব নিয়ে দেখবেন না। কিন্ত আদতে কম্পিউটারে সবচাইতে বেশি ব্যবহার হয় মাউস। বছরের পর বছর ধরে আপিনি সস্তা এবং নিম্নমানের মাউস হাতে ধরে রাখতে চাইবেন না এটাই স্বাভাবিক। আপনি যদি ভেবে থাকেন নতুন মাউস কিনবেন তাহলে এই পোস্টটি আপনার জন্যই। Feeglee.com এর পাঠকদের জন্য আজ নিয়ে এলাম মাউস কেনার আগে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখা উচিৎ।

গেমিং মাউসঃ-
আপনি যদি গেমার হয়ে থাকেন আর আপনি সেরা মানের গেমিং ল্যাপটপ ব্যবহার করেন, কিন্তু আপনি সেই মানের মাউসের ব্যাপারে সচেতন না হন, তবে আপনি গেম খেলার মজা তেমন পাবেন না। সর্বদা সবচাইতে ভাল মানের গেমিং মাউসটিই আপনার কেনা উচিত। আপনাকে ভাল মাউস হয়তো আরও ভাল খেলোয়াড় তৈরি করবে না, তবে এটি আপনার গেমিং অভিজ্ঞতাকে পুরোপুরি সহজ করে তুলবে।

ভ্রমণ মাউস:
আপনি যদি অফিসে, গাড়িতে অথবা ঘুরতে যাওয়ার ক্ষেত্রে মাউস ব্যবহার করে থাকেন। এসব ক্ষেত্রে আপনার সাথে ল্যাপটপ থাকে সুতরাং মাউসটি খুব কমই ব্যবহার হয়ে থাকে। এজন্য এক্ষেত্রে খেয়াল রাখবেন মাউস যেন তুলনামূলক কিছুটা ছোট হয়, যাতে আপনি খুব সহজেই সেটি বহন করতে পারেন। এক্ষেত্রে লেফট এবং রাইট এই দুটি বাটন থাকলেই যথেষ্ট।

সাধারণ মাউস:
আপনি যদি সাধারণ ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে সাইজ এবং সামান্য কিছু ফিচার থাকলেই আপনার জন্য যথেষ্ট। আপনার হাতের সঙ্গে যেটা মানানসই হবে অর্থাৎ দীর্ঘ সময় ব্যবহারে আপনার আঙুল কিংবা কব্জিতে ব্যাথা করবে না, আপনার জন্য এরকম মাউস নির্বাচন করাটাই ভাল হবে।

মাউসের সাইজঃ
বাজারে এখন বিভিন্ন ধরনের, বিভিন্ন সাইজের মাউস পাওয়া যায়। এজন্য মাউস কেনার সময় আপনি খেয়াল রাখুন কোন সাইজের মাউস ব্যবহার করতে আপনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন। এছাড়া অন্য একটি বিষয় খেয়াল রাখা জরুরী বর্তমানে বাজারে অনেক টাইপের মাউস আছে যেগুলোর বাটনে ক্লিক করলে সেটিতে কোন ধরনের বিরক্তিকর শব্দই হয় না। এজন্য গেমিং এর ক্ষেত্রে অথবা খুব বেশি ব্যবহারের ক্ষেত্রে এই ধরনের মাউস আপনার পছন্দের তালিকায় রাখবেন।

অপটিকাল নাকি লেজার:
অপটিকাল এবং লেজার মাউস এই দুটি মাউসেরই যন্ত্রাংশ সব একই রকমের হয়ে থাক। পার্থক্য শুধুমাত্র মাউসের নিচের লাইটের হয়ে থাকে। লেজার মাউসে লেজার ব্যবহার করলেও অপটিকাল মাউসের নীচে এলইডি ব্যবহার করা হয়ে থাকে যাতে মাউসের নাড়াচাড়া বা চলাচল ট্র্যাক করতে পারে লেজারটি। লেজার একটি উন্নত মানের প্রযুক্তি, তাই এটির চলাচল আরও সুনির্দিষ্টভাবে ট্র্যাক করতে পারে এবং দ্রুত স্ক্রিন জুড়েও যেতে পারে এই প্রযুক্তি।

তারবিহীন নাকি তারযুক্তঃ
ওয়্যারলেস এবং ব্লুটুথ এই দুই ধরণের মাউস বর্তমানে তারবিহীন মাউস হিসাবে প্রচলিত। তারযুক্ত মাউস পুরনো টাইপের হলেও দামে সস্তা হওয়ায় এখনও অনেক বেশি জনপ্রিয়। আপনার যদি বাজেট একটু বেশী হয়ে থাকে তাহলে তারবিহীন মাউসই কেনা ভাল হবে আপনার জন্য তাছাড়া পাশাপাশি রিচার্জেবল ব্যাটারি আছে কিনা সেটিও দেখে নেয়া জরুরি আপনার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *