সাবান নাকি বডিওয়াশ কোনটি আপনার জন্য ভালো?

আমরা প্রতিদিন গোসলের সময় সাবান বা বডিওয়াশ ব্যাবহার করে থাকি। আমরা আমাদের ত্বকের উপর মিলিয়ে সাবান অথবা বডিওয়াশ ব্যাবহার করি। কিন্তু অনেকেই জানেনা তার শরীরের সাথে কোনটি মিলবে সেটি জানেনা কখন কোনটি আপনার জন্য সঠিক হবে ব্যাবহার করা। তাই আজ Feeglee.com এর পাঠকদের জন্য নিয়ে এলাম সাবান নাকি বডিওয়াশ কোনটি আপনার জন্য ভালো।

সিজন বুজে ব্যাবহার করতে হবেঃ
গরমের সিজনে ত্বকের জন্য সাবান বেশি উপকারীনা বরং বডিওয়াশ বেশি উপকারী হয়ে থাকে। এর কারণ হলো বডিওয়াশে সাবানের থেকে ক্ষারের পরিমাণ কম থাকে। কিন্তু আপনি মনে রাখুন বডিওয়াশ আপনার ত্বকের উপর ভিত্তি করেই বাছতে হবে।মনে রাখবেন ক্ষারের মাত্রা বেশির ভাগ সাবানেই বেশি থাকে, যেটি আপনার ত্বকের প্রাকৃতিক তেল নষ্ট করে ফেলবে। যার ফলে আপনার ত্বক শুষ্ক হয়ে নানা সমস্যার সৃষ্টি করবে। কিন্তু শাওয়ার জেল, বডিওয়াশ বা লিকুইড সোপে ক্ষার একদম সঠিক পরিমাণে থাকে। সাবানের চেয়ে এগুলো বেশ হালকা হয়ে থাকে।

শুষ্ক ত্বকেঃ
আপনার ত্বক যদি হয় রুক্ষ ও শুষ্ক তাহলে আপনি পিএইচ বা ক্ষারের মাত্রা বুঝে নিন এবং বডিওয়াশ বেছে নিন। নইলে আপনাকে অ্যালার্জি, র্যাশসহ নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। মনে রাখা ভালো এসব ক্ষেত্রে পিএইচ ৫.৫-এর নিচে হলেই ভালো। অয়েল বেইজড বডিওয়াশ বেশি উপকারী শুষ্ক ত্বকের জন্য। এজন্য বডিওয়াশ কেনার সময় সবসময় দেখে নিন এর মূল উপাদানে দুধ, বাটার বা ময়েশ্চারাইজার আছে কি না।

রোদে পোড়া ত্বকেঃ
আপনি যদি নিয়মিত রোদে বের হন তবে আপনার জন্য হাইড্রা এজেন্ট ইআর সমৃদ্ধ বডিওয়াশ ব্যাবহার করা ভালো হবে। যদি আপনার ত্বকে রোদে পোড়া দাগ থাকে তবে সেটি দূর করতে সাহায্য করে এই বডি ওয়াশ।

সেনসিটিভ ত্বকেঃ
আর আপনার ত্বক যদি হয় খুবই সেনসিটিভ, তবে আপনাকে ভেবে-চিন্তেই বডিওয়াশ ব্যবহার করতে হবে। আপনি প্রথমেই লক্ষ রাখুন ক্ষারের দিকে। খুব হালকা ধরনের বডিওয়াশ হলেই ভালো হবে আপনার জন্য।সেনসিটিভ স্কিনের জন্য বিভিন্ন বাজারে বিশেষ বডিওয়াশ পাওয়া যায়। নিম, অ্যালোভেরা, ও তুলসিসমৃদ্ধ বডিওয়াশ সেনসেটিভ ত্বকের জন্য অনেক উপকারী। আপনার যদি অ্যালার্জি থেকে থাক তবে আপনার মনে রাখা ভালো ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া আপনি কখনই বডিওয়াশ ব্যবহার করবেন না।

পূর্ণবয়স্কদের ত্বকেঃ
আপনি যদি পূর্ণবয়স্ক হয়ে থাকেন তবে আপনার ত্বকের জন্য বেছে নিতে হবে অ্যান্টি অ্যাজিংসমৃদ্ধ বডিওয়াশ। এ ক্ষেত্রে বেশ কার্যকর ভূমিকা রাখে প্রোটিনযুক্ত বডিওয়াশ। ত্বকের বলিরেখা কিংবা ভাঁজ পড়ার সমস্যা দূর করতে সাহাজ্য করে প্রোটিনযুক্ত বডিওয়াশ। এসব ক্ষেত্রে আপনি ওটস, টক দই কিংবা মধুর গুণসম্পন্ন বডিওয়াশ বেছে নিতে পারেন।

অ্যারোমা থেরাপিঃ
আপনি যদি অনেক বেশি দুশ্চিন্তায় ভুগে থাকেন বা, ক্লান্ত ও বিষণ্ন থাকেন, তাহলে আপনার জন্য অ্যারোমা থেরাপির বডিওয়াশ অনেক উপকারী হয়ে থাকে। আপনি যদি অ্যারোমা থেরাপির বডি ওয়াশ ব্যবহার করেন তবে শরীরে দুর্গন্ধ দূর হবে; এবং প্রসাধনীর কাজও করবে। এর সদা সুবাশে আপনার মন থাকবে প্রফুল্ল। অ্যারোমা থেরাপির বডিওয়াশ মূলত হারবাল উপাদান ও বিভিন্ন ফুলের নির্যাস থেকে তৈরি করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *